লক্ষ্মীন্দরের স্বাদে

 

18681475

লক্ষ্মীন্দরের স্বাদে জিভের ফাঁকা স্বাদকে একমুঠো মুড়ি দিলাম। লাল সদ্য মাখা মুড়ি। ন মেসোমশাই সেই সক্কাল থেকে একবাটি মুড়ি নিয়ে বসেছে
বারান্দার চাদরে সবুজ দরজার হেলান। ন মাসিমা পেতে রাখা ঝুড়িতে বরবটি, ফালি কুমড়ো সাদা রঙের কি একটা ফল, বটি পেতে বরবটিগুলো ভাগ করছে, মাঝ চেরা। বারান্দায় মেসোমশাইয়ের পাশেই একটু দূরে পা ঝুলিয়ে বসে আমি দেখছি, একটা পুঁইডাঁটার চারা আর কতগুলো কুমড়ো ফুল। সমু তুলে এনেছে। বাপ্পাদাদা পুঁইডাঁটার গাছটা মাটির ফোঁকর খুঁড়ে তার ভেতর আরো ভেতর জলের ঢালা ছিটে! ছিটকে বেরোনো জল! তবু গাছটা কেমন যেন! কেমন যেন বেঁকেই সোজা হচ্ছে না! ঘন বেগুনী ডগার সবুজ লালপেড়ে গাছ। পাতা আছে কয়েকটা মুখের কাছে, দু চারদে সাদা ফলের গুটি, ছোপ ধরেছে তাদের গায়ে অল্প, বেগুনে ছোপ। মেসোমশাই ধমকে ওঠে হঠাৎ! মুড়ির বাটিটা ছিটকে সারা উঠান, জলে বেছে পড়া টুকরোগুলো নরম! একটা বিড়াল, আমাদের ভেলি! ওর গায়ের রঙ হলদে যদিও! কিছুটা ভ্যাবাচ্যাকা যেন, মুড়ি ডিঙাবে বা খাবে! না লাফিয়ে কাটানো পাশ! ন মামা একটা বড় লোহার বটি সন্দেহে পুরছে। মাথা মোড়ানো বস্তায় ঢাকা। বস্তার ছেঁড়া সারা ঘর জুড়ে। আলুর বস্তা মনে হয়! আমি বসে বসে গুণছি কটা মুড়ি সারা বারান্দা ছড়িয়ে এখন, উঠান

অহনা সরকার

#নভেম্বর

(ছবি সংগৃহীত)

২০১৯

উচ্চারণ View All →

আমাদের কথার

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: